যে কারণে সাংবাদিকদের মোবাইল নিয়ে টানাহেঁচড়া করলেন শাকিব

এফডিসিতে পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় বিনোদন সাংবাদিকদের ওপর চড়াও হয়েছেন শাকিব খান।বৃহস্পতিবার বিকেলে ‘শাহেন শাহ’ সিনেমার শুটিং সেটে সহকারী পরিচালক সমিতির সদস্যদের সঙ্গে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয় শাকিব খানের। তা ভিডিও করছিলেন সাংবাদিক জিয়াউদ্দীন আলম ও সুদীপ্ত সাঈদ খান। তা দেখে ক্ষিপ্ত হন শাকিব খান। এরপর ওই দুই সাংবাদিকের মুঠোফোন কেড়ে নেওয়ার জন্য বললেন তাঁর দেহরক্ষী হারুনকে।

তিনি হারুনকে মোবাইল ফোন ‘চেক’ করে যা ভিডিও করা হয়েছে, তা ডিলিট করতে বলেন। অভিযোগ, এনটিভি অনলাইনের মাজহার বাবু, আমাদের সময়.কমের মুহিব আল হাসান ও নিউজজিটোয়েন্টিফোর.কমের সুদীপ্ত সাইদ খানের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেন শাকিব খান। তাদের মোবাইল ফোনগুলোর গুরুত্বপূর্ণ ফাইল ডিলিট করে দেন।

জানা যায়, শাহেনশাহ ছবিতে প্রধান সহকারী পরিচালক হিসেবে কাজ করছেন আলোক হাসান। তিনি সহকারী পরিচালকদের সংগঠন সিনে ডিরেক্টোরিয়াল অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের সদস্য নন। তাই বিষয়টি নিয়ে শাহেনশাহ ছবির শুটিং সেটে কথা বলতে যান সংগঠনটির সভাপতি এস আই ফারুক।

সেটের পাশে যখন তাঁদের সঙ্গে আলাপ হয়, তখন আরও কয়েকজন সদস্য সেখানে যান। একপর্যায়ে সেখানে উত্তপ্ত বাক্যবিনিময় হয়। শাকিব খানসহ শুটিং ইউনিটের আরও কয়েকজন সেখানে এগিয়ে যান। এ সময় সহকারী পরিচালকদের এমন আচরণ দেখে রেগে যান শাকিব খান। পাশে থাকা ওই দুজন সাংবাদিক উত্তপ্ত বাক্যবিনিময়ের মুহূর্ত নিজেদের মোবাইল ফোনের ক্যামেরায় ধারণ করছিলেন।

মোবাইল ফোন কেড়ে নেওয়ার কারণ হিসেবে শাকিব খান বলেন, ‘কেন কেড়ে নেব না? এটা আমাদের অভ্যন্তরীণ ব্যাপার। এসব কেন ভিডিও করবে? তাই আমি ধমক দিয়ে বলেছি, এটা ভিডিও করার কী আছে? তারপর আমি ওসব ভিডিও মুছে ফেলতে বলেছি।’

শাকিব খানের মনে করেন, যারা শাহেনশাহ ছবির শুটিং সেটে ছিলেন, তাদের তিনি সংবাদকর্মী হিসেবে নয়, ছোট ভাই হিসেবে দেখেন। সাংবাদিক হিসেবে যদি দেখতেন, তাহলে শুটিং স্পটে ঢুকতেই দিতেন না।

শাকিব খান বললেন, ‘ওরা এসেছে আমার ছোট ভাই হিসেবে। বিভিন্ন পত্রিকা আর অনলাইনের আরো যারা আসে, সবাইকে ছোট ভাই হিসেবে দেখি। এখন ওরা যদি এফডিসির মধ্যে একটা ঘটনা দেখলে ভিডিও করে বাইরে ছড়ায়, তাহলে তো আমি বলব, তোমরা আমার অ্যাপয়েন্টমেন্ট নিয়ে সেটে আসবে। এ ধরনের ঘটনা যদি ঘটায়, তাহলে তাদের শুটিং এলাকায় ঢুকতেই দেব না।’

শাকিব খান আরো বলেন, ‘এমনিতেই আমাদের সিনেমার অবস্থা খারাপ। তাদের আরো বলেছি, এগুলো মানুষকে দেখিয়ে তোমরা কী বোঝাতে চাও, সিনেমার অবস্থা খুব খারাপ?’

ইউটিউবে শানের নতুন গান "চক পেন্সিল"

আনন্দের গানে অনেক তারকা কণ্ঠশিল্পীই কণ্ঠ দিয়েছেন। সেই ধারাবাহিকতায় এবার কণ্ঠ দিলেন 'কন্যারে...' খ্যাত গায়ক শান। ‌'চক পেন্সিল' শিরোনামের এই গানটি গতকাল সন্ধ্যায় প্রকাশ হয়েছে জি-সিরিজের ইউটিউব চ্যানেলে। শানের সুরে গানটির সংগীতায়োজন করেছেন রেজওয়ান সাজ্জাদ।

গান প্রসঙ্গে শান বলেন, গতানুগতিকের বাইরে একটু বিষয়ভিত্তিক লিরিক খুঁজছিলাম। তারেক আনন্দ ভাইকে বলি ডিফারেন্ট টাইপ কোনো লিরিক আপনার কাছে আছে কিনা। তারপর তিনি ‌'চক পেন্সিল' গানের লিরিকটি দেন। এক ঝলকেই গানের কথা আমার পছন্দ হয়। অনেক সময় নিয়ে গানটি তৈরি করেছি। আশা করছি শ্রোতাদের ভালো লাগবে।

তারেক আনন্দ বলেন, এমন কথার গান ইচ্ছে করলেই বারবার লেখা যায় না। একবারই হয়। ছোটবেলায় দেখেছি, প্রিয় মানুষের নাম বা নামের প্রথম অক্ষর চক পেন্সিলে দরজায় লিখে রাখতে । সেই স্মৃতি থেকেই লেখা ‌'চক পেন্সিল'। সুর, সংগীত, গায়কীর সুন্দর সমন্বয়ের এ গানটি শ্রোতাদের ভালো লাগবে।

হিরো আলমের  বলিউডের ছবির পোষ্টার প্রকাশ

হিরো আলমের বলিউডের ছবির পোষ্টার প্রকাশ


আশরাফুল আলম ওরফে হিরো আলম একেক সময় একেক চেহারায় হাজির হচ্ছেন, একেক সময় একেক গল্পের জন্ম দিচ্ছেন। এই তো ক'দিন আগেই জানা গেল তিনি বলিউড চলচ্চিত্রে অভিনয় করতে যাচ্ছেন। এই ঘটনা অবিশ্বাস্য হলেও সত্য।
বলা যায় হিরো আলমকে নিয়ে নিত্য এক্সপেরিমেন্ট করেই যাচ্ছেন নির্মাতারাও।
বলিউডের ছবিতে একজন বধির ও মূক চরিত্রের জন্য মুম্বাইয়ের একজন পরিচালক হিরো আলমকেই উপযুক্ত মনে করেছেন। সেই অনুযায়ী বাংলাদেশ থেকে নিয়ে গিয়ে ছবিটিতে চুক্তি করান। তার আগে টারজান, পুলিশ কর্মকর্তা চরিত্রে প্রায় সবখানেই উঠতি নির্মাতারা হিরো আলমকে নিয়ে আসছেন।
http://www.kalerkantho.com/assets/news_images/2018/11/01/163952TTT.jpgএবার দেখা যাবে হিরো আলমকে পেত্নীরূপে।  'টি (tee)' নামের একটি ভৌতিক স্বল্পদৈর্ঘ্যে অভিনয় করেছেন আলম। ভুত বাদ দিয়ে পেত্নী কেন? হিরো আলম জানান এটা পরিচালকের চিন্তা ভাবনা। তিনি যেমনটা মনে করেছেন। হিরো আলম ওরফে আশরাফুল আলম বলেন, এটি একটি নতুন অভিজ্ঞতা। রাতভর শুটিং করা হয়েছে। ভৌতিক একটা বিষয় আনার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করা হয়েছে।
সম্প্রতি একটি মেডিক্যাল কলেজে 'টি (tee)' নামের এই স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রের শুটিং সম্পন্ন হয়েছে। এটি পরিচালনা করেছেন ইয়াসিন বিন আরিয়ান। শিগগির এটি ইউটিউব চ্যানেলে মুক্তি দেওয়া হবে।
নিষিদ্ধ হতে পারে  ‘হাজীর বিরিয়ানি’ গানটি

নিষিদ্ধ হতে পারে ‘হাজীর বিরিয়ানি’ গানটি

রায়হান রাফি পরিচালিত সিয়াম-পূজা জুটি অভিনীত দ্বিতীয় ছবি ‘দহন’ সিনেমার ‘হাজির বিরিয়ানি’ প্রকাশ হয়েছিল গত ১৪ অক্টোবর। এরপরে ‘প্রেমের বাক্স’ শিরোনামে আরও একটি গান প্রকাশ হয় এই সিনেমার।  অনেকেই ভাবছিলেন নতুন গানের রেশে আগের গানটি নিয়ে সমালোচনা থেমে যাবে। না, সেই রকম হয়নি।

 গানটিতে ‘অশ্লীল’ কথা ব্যবহারের কারণে সংগীতাঙ্গনে আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়। সংগীতাঙ্গণের মানুষরাও কঠোর সমালোচনা করেছেন এই গানটি নিয়ে।'দহন' ছবির গান 'হাজীর বিরিয়ানি' নিয়ে শুরু থেকেই চলছে নানা আলোচনা-সমালোচনা। ছবির গানের কথা নিয়ে দেশের অনেক সঙ্গীতশিল্পী শুরুতেই আপত্তি তুলেছিলেন। এবার গানের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করা হবে একাধিক মন্ত্রণালয়ে। 'হাজীর বিরিয়ানি' গান লিখেছেন কলকাতার প্রিয় চট্টোপাধ্যায়। এতে সুর করার পাশাপাশি কণ্ঠ দিয়েছেন আকাশ সেন। 

গানের কথায় অশ্লীল শব্দ ব্যবহারের বিরুদ্ধে এক হয়েছেন দেশের শীর্ষ সংগীত পরিচালক, গীতিকার ও কণ্ঠশিল্পীরা। এরই মধ্যে এতে স্বাক্ষর করেছেন আলাউদ্দিন আলী, আলম খান, আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল, সাবিনা ইয়াসমিন, এন্ড্রু কিশোর, ফরিদ আহমেদ, আঁখি আলমগীর, শওকত আলী ইমনসহ শতাধিক তারকা। সবার দাবি এই গানটি নিষিদ্ধ করা হোক, ও গানটির প্রচারণা বন্ধ করা হোক।

৫ দেশের ১৮ শিল্পী নিয়ে মেগা কনসার্ট বুধবার

 

“অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রা বাংলাদেশ” একুশ শতকের উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ সঙ্গে সম্পৃক্ত এবং উৎপাদনশীল কর্মকাণ্ডে উদ্ধুদ্ধকরণসহ বর্তমানে ও ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য স্বাধীনতার স্ব-পক্ষের মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জীবিত করতে শেকড়ের সন্ধানে মেগা কনসার্টের আয়োজন করেছে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়।

 ঘরের মাঠে গলা ছেড়ে ‘তোরে পুতুলের মতো করে সাজিয়ে’ সহ জনপ্রিয় সব গান গাইবেন কুমার বিশ্বজিৎ। তার সঙ্গে বাদ্যযন্ত্র দিয়ে সুরের মূর্ছনা তুলবেন ভারতের কিংবদন্তি বাদক শিবামনি কিংবা রাশিয়ার আনা রাকিতা।

গানের এমন মনোমুগ্ধকর পরিবেশনা দেখতে হাজার টাকায় কেনা কোনো টিকিটের প্রয়োজন হবে না! বিনামূল্যেই উপভোগ করা যাবে কুমার বিশ্বজিৎ, শিবামনি, আনা রাকিতাসহ বাংলাদেশ, ভারত, রাশিয়া, তুরস্ক এবং লাটভিয়ার জনপ্রিয় ১৮ শিল্পী নিয়ে জমজমাট মেগা কনসার্ট।

সংস্কৃত মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে এবং চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় বুধবার (৩১ অক্টোবর) বিকেল সাড়ে ৪টায় নগরের এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে এ কনসার্ট শুরু হবে।

‘শেকড়ের সন্ধানে মেগা কনসার্ট’ শীর্ষক এ আয়োজনে বাংলাদেশের জনপ্রিয় শিল্পী কুমার বিশ্বজিৎ, হৃদয় খান, কুদ্দুস বয়াতি, ফকির শাহাবুদ্দিন, চিশতি বাউল, তাপস অ্যান্ড ফ্রেন্ডস, রিংকু, রেশমি, পুলক এবং শামিম, ভারতের শিবামনি, আরসাদ খান ও রিদম শাহ, রাশিয়ার আনা রাকিতা ও এনটন, লাটভিয়ার নেলী ও আনা ভাইব এবং তুরস্কের সিনান সুরের ঢেউয়ে ভসাবেন চট্টগ্রামের দর্শকদের।

 জেলা প্রশাসক মো. ইলিয়াস হোসেন বাংলানিউজকে জানান, সরকারের উন্নয়ন চিত্র সবার মধ্যে ছড়িয়ে দিতে ‘শেকড়ের সন্ধানে মেগা কনসার্ট’ শীর্ষক এ অনুষ্ঠান করা হচ্ছে। এর মাধ্যমে বিভিন্ন দেশের জনপ্রিয় শিল্পীদের পরিবেশনার ফাঁকে ফাঁকে দর্শকদের সামনে সরকারের নানা উন্নয়নের ভিডিও চিত্র তুলে ধরা হবে।

তিনি বলেন, পুরো অনুষ্ঠানটি উপভোগ করতে কোনো ধরনের টিকিট কিংবা টাকার প্রয়োজন নেই। বিনামূল্যেই চট্টগ্রামবাসী বাংলাদেশ, ভারতসহ ৫টি দেশের জনপ্রিয় শিল্পীদের মনোমুগ্ধকর পরিবেশনা উপভোগ করতে পারবেন।

সালমানকে পেছনে ফেলে শীর্ষে আফ্রিদী

সালমান মোক্তাদিরকে পেছনে ফেলে এখন দেশের শীর্ষ ইউটিউবার তৌহিদ আফ্রিদী। বৃহস্পতিবার সাড়ে ১০টা পর্যন্ত তার ইউটিউব (TAWHID AFRIDI) চ্যানেলের সাবস্ক্রাইবার সংখ্যা ১১ লাখ ১৫ হাজার ৩১৯ জন পার হয়েছে।

জানা গেছে, ২০১৫ সালে প্রথম অ্যাকাউন্ড ওপেন করলেও মূলত ইউটিউব নিয়ে তৌহিদ আফ্রিদী কাজ শুরু করেন ২০১৬ সাল থেকে। তার নান্দনিক উপস্থাপনা এবং গঠনমূলক কাজের জন্য মাত্র এক বছরের মধ্যেই এক লাখ ভিউয়ার্স তাকে সাবস্ক্রাইব করে। দুই বছরের মধ্যেই তার সাবস্ক্রাইব হয়ে যায় ১০ লাখ। আর এখন তিনি দেশের শীর্ষ স্থানে রয়েছেন। ক্রমাগত ও নিরলস চেষ্টার মাধ্যমে নিয়মিত প্রাঙ্ক ভিডিও, কমেডি নাটক ও বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্বদের সাক্ষাৎকার দিয়ে তৌহিদ আফ্রিদী আজ শীর্ষে।

এর আগে মজার মজার ভাবনা আর দারুণ সব ভিডিও দিয়ে দীর্ঘদিন ধরে এই শীর্ষ স্থানটি ছিল সালমান মোক্তাদিরের। এখন তার ইউটিউব (salmon thebrownfish) চ্যানেলের সাবস্ক্রাইবার সংখ্যা ১১ লাখ ১৪ হাজার ৮৬০ জন (বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত)।

ইউটিউবার তৌহিদ আফ্রিদী বাংলাদেশের বেসরকারি টেলিভিশন মাইটিভির চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাসির উদ্দিন সাথী এবং উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক আসপিয়া উদ্দিন দম্পতির একমাত্র ছেলে।

শুরু হচ্ছে নিরবের "অফিসার রিটার্নস"

   

গেলো মে মাসে এফডিসির জহির রায়হান কালার ল্যাবে বন্ধন বিশ্বাসের ‘অফিসার রিটার্নস’ ছবির মহরত অনুষ্ঠিত হয়েছিলো। এ ছবির মাধ্যমে প্রথমবার জুটি বাঁধছেন চিত্রনায়ক নিরব ও জলি। 

মহরত হলেও শিডিউলজনিত কারণে তখন ছবির শুটিং শুরু হয়নি। অবশেষে সব প্রস্তুতি শেষে আগামী ১ নভেম্বর থেকেই শুরু হতে যাচ্ছে ‘অফিসার রিটার্নস’ ছবির শুটিং।

 ছবিটি নিয়ে  চিত্রনায়ক নিরব জানায় , ‘অফিসার রিটার্নস’ হচ্ছে মৌলিক গল্পের ছবি। আর এটাই হবে দর্শকদের ভালো লাগার মূল হাতিয়ার। এখানে আমাকে একজন পুলিশ অফিসারের চরিত্রে দেখা যাবে। যে তার দায়িত্ব পালনে সবসময় রাফ অ্যান্ড টাফ। চরিত্রের জন্য নিজের লুকে কিছু পরিবর্তন আনছি। আশা করছি দর্শকরা আমাকে নতুন ভাবে দেখতে পাবেন।’ 

 ঢাকা ও গাজিপুরে প্রথম লটে ১০ দিন শুটিং হবে। এ লটে কিছু অ্যাকশন ও ড্রামা দৃশ্য ধারণের কাজগুলো করা হবে। এ লটে নায়িকার কোন দৃশ্যায়ন থাকছে না। তবে পরবর্তী লটে নিরবের সঙ্গে যোগ দেবেন এ ছবির নায়িকা জলি।

 নির্মাতা বন্ধন বিশ্বাস বলেন, ‘আগামী ১ নভেম্বর থেকে টানা দশদিন শুটিং করবো। এ লটের কাজ শেষ করে কিছুদিন পরই দ্বিতীয় লটের শুটিং শুরু করবো। আমার বিশ্বাস যে পরিকল্পনা নিয়ে এই ছবিটি করতে যাচ্ছি সবকিছু ঠিকভাবে শেষ করতে পারলে একটি সাকসেসফুল প্রজেক্ট হবে আমার।’

নিরব-জলি ছাড়াও এই ছবিতে আরো অভিনয় করেছেন আলেক জান্ডার বো, সাদেক বাচ্চু, শক্তি খান, নিশু, শিমুল খান প্রমুখ।

হাসপাতালে ভর্তি চিত্রনায়িকা পূর্ণিমা

হাসপাতালে ভর্তি চিত্রনায়িকা পূর্ণিমা

https://www.bdmorning.com/public/news/bdmorning1540439209jj.jpg 

ঢাকাই সিনেমার জনপ্রিয় নায়িকা পূর্ণিমা। ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে রাজধানীর একটি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন তিনি। বুধবার দিবাগত রাতে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন পূর্ণিমার স্বামী আহমেদ ফাহাদ জামাল।

তিনি বলেন, ‘কয়েকদিন ধরেই জ্বরে ভুগছিল পূর্ণিমা। চিকিৎসকের শরণাপন্ন হলে জানা যায় ডেঙ্গু ভাইরাসে আক্রান্ত সে। চিকিৎসকের পরামর্শে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। দুইদিন আইসিইউতেও ছিল।’

ত্রী পূর্ণিমার জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন ফাহাদ জামাল। তিনি বুধবার রাতে ফেসবুকে এক স্ট্যাটাসে আরও জানান, চিকিৎসকরা ভয়ের কিছু নেই বলে জানিয়েছেন। তবে দুই সপ্তাহ তাকে পূর্ণ বিশ্রামে থাকার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

১৯৯৭ সালে মুক্তি পাওয়া ‘এ জীবন তোমার আমার’ ছবি দিয়ে চলচ্চিত্রে আসেন পূর্ণিমা। এরপর তিনি কাজ করেছেন ‘নিঃশ্বাসে তুমি বিশ্বাসে তুমি’, ‘যোদ্ধা’, ‘হৃদয়ের কথা’, ‘মনের মাঝে তুমি’, ‘আকাশ ছোঁয়া ভালোবাসা’, ‘শাস্তি’, ‘শোভা’, ‘মেঘের পর মেঘ’সহ বহু ব্যবসাসফল ও প্রশংসিত সিনেমায়।

কাজী হায়াৎ পরিচালিত ‘ওরা আমাকে ভালো হতে দিল না’ ছবির জন্য ২০১০ সালে সেরা অভিনেত্রী হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেন গুণী এ অভিনেত্রী। বর্তমানে সিনেমার অভিনয় থেকে বিরতিতে রয়েছেন। তবে সরব রয়েছেন উপস্থাপনা ও ছোট পর্দার অভিনয়ে।

২০০৭ সালের ৪ নভেম্বর পারিবারিকভাবে আহমেদ ফাহাদ জামালের সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন ঢাকাই চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় তারকা অভিনেত্রী পূর্ণিমা। তাদের সুখের দাম্পত্য জীবন আলোয় ভরিয়ে রেখেছে একমাত্র কন্যা আরশিয়া উমাইজা।

বিকাশের নতুন বিজ্ঞাপনে মাশরাফির সাথে ফারিন

বিকাশের নতুন বিজ্ঞাপনে মাশরাফির সাথে ফারিন

http://www.kalerkantho.com/assets/news_images/2018/10/24/162001masrafi-20181024124922.jpg 

নতুন একটি বিজ্ঞাপনের মডেল হলেন মাশরাফি বিন মর্তুজা। গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর উত্তরার দিয়া বাড়িতে সেই বিজ্ঞাপন চিত্রের শুটিংয়ে অংশ নেন এ জাতীয় দলের অপরিহার্য এই খেলোয়াড়। বিজ্ঞাপনটি বিকাশের। 

মাশরাফির সাথে এই বিজ্ঞাপনপচিত্রে কাজ করেছেন মডেল ও অভিনেত্রী ফারিন। বিজ্ঞাপনটি নির্মাণ করেন আশফাক উজ জামান বিপুল।

ফারিন বলেন,আমি এক্সাইটমেন্ট ধরে রাখতে পারছি না। মাশরাফি ভাইয়া খুবই ভালো একজন মানুষ। কাজের জায়গায় তিনি অনেক সহায়ক ও হেল্পফুল। আমি মুগ্ধ হয়েছি। দুই ক্যামেরাতে কাজ করায় গতকাল সন্ধ্যার মধ্যেই শুটিং শেষ হয়ে যায়।

শিগগিরই বিজ্ঞাপনটি দেশের সবগুলো চ্যানেলে প্রচার হবে।

নভেম্বরেই রণভীর-দীপিকার বিয়ে

নভেম্বরেই রণভীর-দীপিকার বিয়ে

http://www.newsg24.com/uploadFile/91df8_fdee352473_long.jpg 

জল্পনা-কল্পনার শেষ নেই বলিউড তারকা দীপিকা পাড়ুকোনের বিয়ে নিয়ে। প্রেমিক রণভীর সিংয়ের সঙ্গে কবে হবে বিয়ে, জানতে উন্মুখ তার ভক্তরা।

অবশেষে তার উত্তর পাওয়া গেল। শিগগিরই বিয়ে করছেন রণভীর-দীপিকা। আর বিয়ের দিন নিজেই ঘোষণা করলেন অভিনেত্রী দীপু

রোববার বিকেলে টুইট করে জানালেন, আগামী ১৪ এবং ১৫ নভেম্বরেই চার হাত এক হতে চলেছে এই প্রেম যুগলের।

যেখানে লেখা রয়েছে, সবার সঙ্গে এই খবর শেয়ার করতে পেরে তারা খুবই খুশি। দু’জনের পরিবারের আশীর্বাদে আগামী ১৪ এবং ১৫ নভেম্বর বিয়ে করতে চলেছেন রণভীর ও দীপিকা।

সেই সঙ্গে জানিয়েছেন, এত বছর ধরে সবাই যেভাবে তাদের ভালোবেসেছেন তার জন্য কৃতজ্ঞ তারা। তাদের নতুন জীবনের জন্য সবার কাছে আশীর্বাদও চেয়েছেন এই দুই তারকা।

কিংবদন্তি ব্যান্ড সংগীত শিল্পী আইয়ুব বাচ্চু আর নেই

বাংলাদেশের কিংবদন্তি ব্যান্ড সংগীত শিল্পী আইয়ুব বাচ্চু আর নেই (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬০ বছর। আজ সকালে নিজ বাসায় তাঁকে অচেতন অবস্থায় পাওয়া যায়। পরে স্কয়ার হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসকরা তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

বাংলাদেশের ব্যান্ড সঙ্গীত জগতে গিটার ও গানের ক্ষেত্রে অসামান্য অবদান রেখেছেন আইয়ুব বাচ্চু। গানের পাশাপাশি গিটারেও ভক্তদের মাত করেছেন তিনি।

আইয়ুব বাচ্চুর গাওয়া ‘কষ্ট পেতে ভালোবাসি,’ ‘সেই তুমি কেন অচেনা হলে’, ‘একদিন ঘুম ভাঙ্গা শহরে’, ‘মেয়ে ও মেয়ে’, ‘কবিতা সুখ ওড়াও’, ‘এক আকাশ তারা’ গানগুলো ঘুরেছে মানুষের মুখে মুখে।

১৯৭৮ সালে সঙ্গীতজীবন শুরু করেন আইয়ুব বাচ্চু। আইয়ুব বাচ্চু একাধারে গায়ক, লিড গিটারিস্ট, গীতিকার, সুরকার, প্লেব্যাক শিল্পী ও সঙ্গীত পরিচালক ছিলেন।

সোলসের হয়ে ব্যান্ড সঙ্গীতে পা রাখার পর ১৯৯০ সালে নিজের ব্যান্ড দল প্রতিষ্ঠা করেন আইয়ুব বাচ্চু। ব্যান্ডের নাম রাখেন ‘লিটল রিভার ব্যান্ড’। পরবর্তীতে এর নাম বদলে রাখা হয় ‘লাভ রান্‌স ব্লাইন্ড’।

ওই বছরই এলআরবি ডাবল অ্যালবাম দিয়ে তাদের যাত্রা শুরু করে। ১৯৯৫ সালে বাচ্চু তার তৃতীয় একক অ্যালবাম ‘কষ্ট’ বের করেন। বাংলাদেশের সর্বকালের সেরা একক অ্যালবামগুলোর মধ্যে একটি এটি।

 

এসকে সমীরের সুর ও সংগীতে গাইলেন বাবু

https://www.daily-bangladesh.com/english/assets/news_photos/2018January/SM/-180205105637.

সম্প্রতি নতুন একটি গানে কন্ঠ দিয়েছেন ছোট পর্দা ও বড় পর্দার জনপ্রিয় অভিনেতা ফজলুর রহমান বাবু। গায়ক হিসেবে তার জনপ্রিয়তাও কম নয়।  তারই ধারাবাহিকতায় সম্প্রতি নতুন একটি গানে কন্ঠ দিয়েছেন ফজলুর রহমান বাবু। 'খোঁপা ক'রে চুল বেঁধো না" শিরোনামে এই গানটির  লিখেছেন ইন্দুবালাখ্যাত সুরকার প্লাবন কোরেশী এবং সুর ও সংগীত পরিচালনা করেছেন এসকে সমীর। 

 

লায়নিক মাল্টিমিডিয়ার ইউটিউব চ্যানেলে  গানটির লিরিক্যাল ভিডিও প্রকাশিত হয়েছে। খুব শিগগিরই গানটি মিউজিক ভিডিও রিলিজ হবে বলে জানা গেছে।  

উল্লেখ্যঃ নাট্যদল ‘আরণ্যক’-এ অভিনয়ের শুরু থেকেই গান গাইতেন। তবে গিয়াস উদ্দিন সেলিম পরিচালিত ‘মনপুরা’ চলচ্চিত্রে গান গাওয়ার পর গায়ক হিসেবে বাবুর পরিচিতি ব্যাপকভাবে বেড়ে যায়। স্টেজ শোতেও তার ডাক আসতে থেকে দেশ-বিদেশ থেকে। ‘মনপুরা’ সিনেমার ‘নিথুয়া পাথারে’ গানটি গেয়ে পুরো দেশ কাঁপিয়ে দিয়েছিলেন তিনি। বাবুর গাওয়া আরেকটি জনপ্রিয় গান ‘ইন্দুবালা’।